বুধবার, ১২ মে ২০২১, ১১:৩৯ পূর্বাহ্ন

সংবাদ শিরোনাম :
শিক্ষা খাতে বাজেটের ২০ শতাংশ বরাদ্দ দিতে হবে কুমিল্লা ইপিজেডের চায়না কোম্পানির কর্মকর্তা হত্যার বিচারের দাবিতে মানববন্ধন কুমিল্লায় সেনাবাহিনীর খাদ্য সহায়তা পেল ৫ শতাধিক পরিবার কুমিল্লায় শপিংমলে স্বাস্থ্যবিধি মানাতে পুলিশের অভিযান যুক্তরাষ্ট্রের সর্বোচ্চ পর্বতশৃঙ্গে দেশের পতাকা উড়ালেন কুবি শিক্ষক কুমিল্লায় ইপিজেডের কর্মকর্তা হত্যা মামলার প্রধান অসামী গ্রেফতার ময়নামতি রেজিমেন্ট বিএনসিসি’র মানবিক সহায়তা স্বাস্হ্যবিধি উপেক্ষিত কুমিল্লার ঈদ বাজারে হার্ট কেয়ার ফাউন্ডেশন কুমিল্লা’র ব্যবস্থাপনায় অসহায় দরিদ্র ও প্রতিবন্ধীদের মাঝে খাদ্য সহায়তা, সেলাই মেশিন ও হুইল চেয়ার বিতরণ কুমিল্লার আবাসিক এলাকায় বিষাক্ত বর্জ্য ডাম্পিং কুমিল্লায় মুনিয়া হত্যায় বসুন্ধরা এমডির সর্বোচ্চ শাস্তির দাবি।। আইনজীবী ও মুক্তিযোদ্ধাদের মানববন্ধন ” শ্রমের স্বীকৃতি “ কুমিল্লা রয়েল বাইকার্স গ্রুপ কর্তৃক দুঃস্থদের মাঝে ইফতার বিতরণ লাকসামে মৎস্য হ্যাচারীর পুকুরে বিষ দিয়ে পোনা মাছ নিধন দেবিদ্বারে ফ্লাটের তালা ভেঙ্গে নারীর গলিত লাশ উদ্ধার
গোমতীর চরে মাটিকাটা চলছেই!! জেলা প্রশাসনের অভিযান

গোমতীর চরে মাটিকাটা চলছেই!! জেলা প্রশাসনের অভিযান

নিউজ ডেস্ক।। গোমতী নদীর বালু-মাটিখেকোরা নদী গিলে খাওয়ার পর চরের কৃষি জমিও খেয়ে শেষ করছে। গোমতীর কুমিল্লা অংশের প্রায় ৫৮ কিলোমিটার দীর্ঘ নদীর বেশিরভাগ স্থানেই চরের কৃষি জমি এখন ক্ষতবিক্ষত ড্রেজার, ভেকু আর কোদালের আঘাতে।

 

তবে কুমিল্লার গোমতী নদীর অস্তিত্ব রক্ষায় দীর্ঘদিন পর অবশেষে বালুমহাল ইজারা বাতিলের উদ্যোগ নিয়েছে কুমিল্লা জেলা প্রশাসন। গত বাংলা সনের ৩০ চৈত্রের পর বৈধ বালুমহালগুলোর ইজারার শেষ হয়। এরপর আর নতুন করে এবছর সরকারিভাবে বালুমহাল ইজারা না দেওয়ার বিষয়টি চূড়ান্ত করে প্রশাসন। ইজারা না থাকলেও আইন ও জেলা প্রশাসনের নির্দেশকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আগের মতই দিনে রাতে দেদারছে গোমতী চরের মাটি কাটছে মাটিখেকো সিন্ডিকেট। বিশেষ করে আদর্শ সদরের টিক্কারচর থেকে গোলাবাড়ি সীমান্ত পর্যন্ত প্রায় ৪০-৫০ টি স্পটে দিনে রাতে হেক্টরের পর হেক্টর উর্বর ফসলী জমি উজার করে কেটে নেয়া হচ্ছে মাটি। জোর করে কিংবা জমির মালিককে সামান্য টাকা দিয়ে ক্ষমতাসীন দলের নেতা ও কর্মী সমর্থক, স্থানীয় জনপ্রতিনিধিসহ অবৈধ মাটিকাটা সিন্ডিকেটের দৌরাত্ম্যে অসহায় চরের কৃষকরা।

 

মাটিকাটা সিন্ডিকেটের ভয়ে অভিযোগ ও করতে পারছেন না দিশেহারা চরের কৃষকরা। অভিযোগ রয়েছে ইজারা না থাকলেও সদর উপজেলার টিক্কারচর সংরাইশ জালুয়াপাড়া অরণ্যপুর গোলাবাড়িসহ বিভিন্ন এলাকার অর্ধশতাধিক স্পষ্ট থেকে কোটি টাকার মাটি বিক্রি হচ্ছে দৈনিক। নাম প্রকাশ না করার শর্তে অবৈধ মাটি ব্যবসায়ীদের অনেকে দাবী করেন, ইজারা না থাকলেও বিভিন্ন মহলকে ম্যনেজ করেই তারা চরের মাটি কাটছেন।

 

জেলা প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গোমতী নদী হতে বালু উত্তোলন করে বিক্রি করার মতো বালু এখন আর নেই। যার কারণে মাটিখেকোরা এখন কৃষি জমির মাটি লোপাট করছে। চলমান ইজারার মেয়াদ শেষ হলেও খোঁড়া যুক্তি দেখিয়ে হাইকোর্টে একটি অগৃহীত পিটিশন দায়েরের বাহানায় দিয়ে মাটি কাটছে মাটিখেকো সিন্ডিকেট।বিআইডব্লিউটিএর মাধ্যমে গোমতী নদীতে হাইড্রোগ্রাফিক সার্ভে করা হবে। সার্ভেতে নদীতে বালু না থাকার বিষয়টি নিশ্চিত হলে আগামীতে গোমতীর বালুমহাল ইজারা বাতিল করা হবে। সেজন্যই এবছর নতুন করে বালু মহাল ইজারা দেয়া হয়নি।

 

গত ২০শে মার্চ থেকে গোমতী নদী ও নদীর চরের কৃষি জমি রক্ষায় দিন-রাত অভিযান শুরু করে জেলা প্রশাসন। গোমতী রক্ষায় মাসব্যাপী ২৪ ঘণ্টা অভিযান পরিচালনা করে আটক করা হয় অনেককে। জব্দ করা হয় মাটিবাহী গাড়ি ভেকু ড্রেজার সহ মাটিকাটা সরঞ্জাম। এতে অনেকটাই কমে আসে মাটি কাটা।

 

তবে সম্প্রতি আবারও মাটিকাটা সিন্ডিকেট বেপরোয়া হয়ে ওঠেছে। লকডাউন ও করোনা পরিস্থিতিতে জেলা প্রশাসনের ব্যস্ততার কারণে নতুন উদ্যমে শুরু হয়েছে চরের মাটিকাটা। বিষয়টি নজরে এলে গত সোমবার জেলা প্রশাসক মোঃ কামরুল হাসান এর সার্বিক নির্দেশনায় গোমতী চরের ৩টি স্পটে অভিযান চালিয়ে ৭টি ড্রেজার মেশিন ধ্বংস করা হয়। জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিস্ট্রেট আশীক উন নবী তালুকদার ও অতীশ সরকারের নেতৃত্বে জেলা পুলিশ ও আনসার বাহিনীর সহায়তায় অভিযানটি পরিচালিত হয়। সকাল সাড়ে ১১টা থেকে পরিচালিত এ অভিযানে অবৈধ ভাবে মাটি কাটার অপরাধে পালপাড়া এলাকার ভুইয়াবাড়ি ঘাটের ৪টি, আড়াইওড়া পালপাড়া এলাকায় ২টি এবং আলেখারচর এলাকায়১টি সহ মোট ৭টি ড্রেজার মেশিন ধ্বংস করা হয় এবং ড্রেজারের বিভিন্ন সরঞ্জাম জব্দ করা হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করে কুমিল্লা জেলা প্রশাসনের এক্সিকিউটিভ ম্যাজিষ্ট্রেট মোঃ আবু সাইদ।

 

জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. আবু সাঈদ জানান, “জেলা প্রশাসক মোঃ কামরুল হাসান সরেজমিনে দিনে ও রাতের বেলায় গোমতীর মাটি উত্তোলনের দৃশ্য দেখার পর এ বিষয়ে ‘জিরো টলারেন্স’ নীতি গ্রহণের ঘোষণা দিয়েছেন। তার নির্দেশনায় গোমতী ও চরের কৃষি জমি রক্ষায় নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করে যাব।”

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




themesba-zoom1715152249
© কুমিল্লা দর্পণ। সর্বসত্ব সংরক্ষিত
ডিজাইন ও ডেভেলপে Host R Web